ইতালি কৃষি ভিসা ২০২৩ আবেদন ফরম

ইতালি কৃষি ভিসা ২০২৩ আবেদন ফরম
ইতালি কৃষি ভিসা ২০২৩ আবেদন ফরম

ইতালি কৃষি ভিসা আবেদন ২০২৩ নিয়ে বিস্তারিতভাবে এখানে আমরা তুলে ধরব আশা করি সম্পূর্ণ কনটেন্টই পড়লে আপনারা ইতালি কৃষিকাজ নিয়ে যত রকমের ভিসা আছে তার সবগুলো সম্পর্কে জানতে পারবেন এবং ইতালি কৃষি সিজনাল ভিসা এবং ইতালি কৃষি নন সিজনাল ভিসা সম্পর্কেও আপনারা বিস্তারিত তথ্য জানতে পারবেন তাহলে চলুন পর্যায়ক্রমে বিষয় নিয়ে কথা বলা যাক।

বিগত বছরগুলো থেকেই ইতালি কৃষি ভিসা নিয়ে যাওয়ার সুযোগ ছিল এবং অনেক কর্মী কিন্তু ইতালিতে কৃষি ভিসা নিয়ে গিয়ে সেখানে বর্তমানে কাজে নিয়োজিত আছে কিন্তু নতুন ভাবে ২০২৩ সালে আবারো কৃষি ভিসাতে ইতালিতে যাওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে। মোর ৩৩ টি দেশ থেকে ৮২ হাজার ৭০৫ জন শ্রমিক নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ইতালি সরকার অলরেডি এটার উপর গ্যাজেট ও প্রকাশ করা হয়ে গেছে।

আগামী 27 শে মার্চ থেকে অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন শুরু করা হয়েছে তবে এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ থেকে ৩১শে ডিসেম্বর পর্যন্ত এটি চলমান থাকবে কিভাবে আপনার আবেদন করবেন এবং আবেদন করার জন্য কি কি পদ্ধতি অবলম্বন করা লাগবে তার সবগুলোই তুলে ধরেছে।

ইতালি কৃষি ভিসা ২০২৩

ইতালি সরকার বাংলাদেশ সহ মোট ৩৩ টি দেশ থেকে ২০২৩ সালে প্রায় ৮২ হাজার ৭০৫ জন হাজার কর্মী নেবে। ৩১শে ডিসেম্বর পর্যন্ত কর্মী নেওয়ার প্রক্রিয়া চলমান থাকবে। বাংলাদেশ থেকে দালালের মাধ্যমে ইতালি যেতে হলে অনেক টাকা খরচ হয়ে থাকে এমনকি দালালরা অনেক সময় প্রতারণা করে থাকে ইতালি যাওয়া কর্মীদের সাথে।

তাই অবশ্যই ইতালি যাওয়ার আগে দালালের খবর থেকে সতর্ক থাকতে হবে তা না হলে লাখ লাখ টাকা দালাল প্রতারণা করে আপনাদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে যেতে পারে এমনকি আপনারা বিপদেও করতে পারেন। ইতালিতে যাওয়ার জন্য প্রধানত দুই শ্রেণীতে শ্রমিক নিবে এক্ষেত্রে সিজনাল ভিসা।

আরো পড়ুনঃ  জাপানের নাগরিকত্ব পাওয়ার উপায় ( নতুন নিয়ম )

মূলত ইতালিতে দুই ভাবেই কৃষি কাজের উপর ভিসা নিয়ে যাওয়া যাবে এক্ষেত্রে আমরা পর্যায়ক্রমে আলোচনা করব কিভাবে আপনারা ইতালিতে কৃষি ভিসা আবেদন করবেন। এবং আবেদন করার জন্য প্রয়োজনীয় কি কি কাগজপত্র লাগে তার সকল বিষয়গুলো এখানে তুলে ধরবো।

ইতালিতে কিভা কৃষি ভিসা পাবেন

ইতালিতে প্রথমত দুই শ্রেণীতে কৃষি ভিসা পাওয়া যাচ্ছে একটি হচ্ছে সিজনাল ভিসা এবং আরেকটি হচ্ছে নন সিজনাল ভিসা এটার মাধ্যমে প্রায় ৪৪ হাজার কর্মী নিবে ইতালি সরকার। তার মধ্যে শুধুমাত্র কৃষি কাজের জন্যই কৃষি ভিসাতে ইতালি সরকার কর্মী নেবে প্রায় ২২ হাজার। বাকিরা অন্যান্য সিজনাল কাজের জন্য ভিসার ক্ষেত্রে আবেদন করতে পারবে।

ইতালির সিজনাল শ্রমিকদের জন্য শুধুমাত্র নয় মাসের জন্য ভিসা দেওয়া হয়ে থাকে ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরে আবার নির্দেশে ফিরে আসতে হবে। যদি কেউ ফিরে না যান তাকে অবৈধ অবিবাহিত হিসেবে সেখানে থাকা লাগবে এক্ষেত্রে পরবর্তীতে কঠিন সময়ের মুখাপেক্ষী হতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ  আলবেনিয়া টুরিস্ট ভিসা-আলবেনিয়া স্টুডেন্ট ভিসা ( আবেদন প্রক্রিয়া )

অনেক সময় ইতালিতে সিজনাল ভিসা যাওয়ার পরে অনেক কর্মী আছে যারা কিনা পরবর্তী সময়ে কাজের ক্ষেত্রে তাদের অগ্রধিকার দেওয়া হয় না এবং পরবর্তীতে ইতালি ঢোকার সময় কিন্তু আরো বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। এবছর 6600 জন স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য আবেদন করতে পারবে বলে ইতালি সরকার জানিয়ে সে ক্ষেত্রে যারা অবৈধভাবে আছে তারা কিন্তু এই সুযোগ নিতে পারবে না।

ইতালি কৃষি ভিসা আবেদন খরচ

প্রতি একজন ইতালি কৃষি ভিসায় আবেদন খরচ ১৬ ইউরো। আর বাইরে থেকে কেউ যদি ইতালি কৃষি ভিসার আবেদন ফরম পূরণ করে তাহলে হ্যাবডিক্স এর সাহায্য নেই তাহলে আরো বেশি খরচ হবে এক্ষেত্রে ১০০ থেকে ১৫০ ইউরো খরচ হবে। এক্ষেত্রে কিসে বিচার দাম কিন্তু আলাদাভাবে নির্ধারিত হয় এটি শুধুমাত্র আবেদন খরচ উল্লেখ করা হলো।

ইতালি কৃষি ভিসার দাম কত

হলো তো ইতালি কৃষি ভিসার দাম নির্ভর করে আপনি সিজনাল কৃষি ভিসা নিচ্ছেন নাকি নন সিজনাল কৃষি বিচার নিচ্ছেন তার ওপর। ইতালি সিজনাল কৃষি ভিসা নিতে হলে খরচ পড়বে প্রায় ৫ লাখ থেকে ৭ লাখ টাকার মত। আর আপনি যদি নন সিজনাল কৃষি ভিসা নিয়ে যেতে চান তাহলে কিন্তু খরচ আরো বেশি হবে এক্ষেত্রে ৮ থেকে ১২ লক্ষ টাকা খরচ হবে।

এখানে আমরা যে ভিসার দামটি উল্লেখ করেছে এটা শুধুমাত্র সরকার নিবন্ধিত যে সমস্ত এজেন্সিগুলো রয়েছে তার মাধ্যমে তবে সরকারিভাবে গেলে কিন্তু একেবারে কম খরচের মধ্যে ইতালি কৃষি ভিসা পাওয়া যায়। তবে আপনি যদি সরকারি মাধ্যমে যেতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই প্রথম অবস্থায় ভিসা আবেদন করে প্রয়োজনীয় কাজের উপর দক্ষতা অর্জন করে পরীক্ষা দিয়ে তারপরে আপনাকে যেতে হবে।

সরকারিভাবে কিভাবে ইতালি কৃষি ভিসা নিয়ে যেতে পারবেন এবং বাংলাদেশের কৌটা কত তা সকল বিষয়গুলো নিয়েই আপনারা বিস্তারিতভাবে নিচে জানতে পারবেন তাহলে পরাজয় কমে চলুন আমরা অন্যান্য বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করি।

ইতালি কৃষি ভিসা সংক্রান্ত নোটিশ

ইতালি কৃষি ভিসাপ্রথম পাতা
ইতালি কৃষি কর্মী সংখ্যা২২ হাজার
আবেদনের মাধ্যমসরকার নিবন্ধিত এজেন্সি
ইতালি কৃষি কাজে বেতন১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা
আবেদনের শেষ সময়31 ডিসেম্বর
আবেদনের খরচ১৬ ইউরো
ইতালি কৃষি অফিসার দাম৪ লক্ষ থেকে ১০ লক্ষ টাকা
ইতালি কৃষি অফিস আবেদন ফরমইতালি কৃষি ভিসা আবেদন ফরম

ইতালিতে কৃষি কাজের বেতন কত

বর্তমানে যারা ইতালিতে কৃষি কাজে নিয়োজিত আছে তাদের বেতন ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা থেকে ১ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত। তবে এই ক্ষেত্রে বর্তমান সময়ে যারা কৃষি ভিসা নিয়ে যাচ্ছে তাদের ক্ষেত্রে সিজনাল ভিসা অথবা নন সিজনাল ভিসাতে অনেক টাকায় খরচ হচ্ছে সেই অনুযায়ী বেতনও কিন্তু ভালো পরিমাণ বেশি পাওয়া যাচ্ছে। তাই আপনারা যারা বর্তমানে কৃষি ভিসা নিয়ে যেতে চাচ্ছেন তাদের বেতন ১ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত ধরে রাখতে পারেন।

পাশাপাশি আপনাদের যদি নন সিজনাল ভিসা নিয়ে যেতে পারেন তাহলে কিন্তু আরো বেশি পরিমাণ বেতন তুলতে পারবেন কেননা এখানে সিজনাল ভিসার মাধ্যমে যদি চান তাহলে নয় মাস পর্যন্ত সেখানে থাকতে পারবেন। তবে যদি আপনি নন সিজনাল ভিসা নিয়ে যান খরচ একটু বেশি হলেও কিন্তু বেশি সময় সেখানে থাকার সম্ভাবনা আছে এবং ভালো পরিমাণ বেতন তোলার সম্ভাবনা আছে। প্রতিবছর ইতালি শ্রমিকদের ভেতর বৃদ্ধি করা হয়ে থাকে তাই সে অনুযায়ী ভালো পরিমাণ বেতন তোলার সম্ভাবনা আছে।

আরো পড়ুনঃ  ব্রুনাই ফ্রি ভিসা পাওয়ার উপায় এবং ব্রুনাই ফ্রী ভিসার দাম কত

ইতালিতে কারা কৃষি শ্রমিক নিবে

ইতালিতে নাগরিক বা প্রতিষ্ঠান প্রধান দেশটির সরকার বেধে দেওয়া শর্ত অনুযায়ী প্রবাসী শ্রমিক নেওয়ার আবেদন করতে পারবে যে কোন প্রতিষ্ঠান। এক্ষেত্রে বাংলাদেশী কোন ব্যক্তি যদি ইতালিতে অবস্থান করে এবং তাদের নাগরিক থাকে তাহলে কিন্তু সেই অনুযায়ী সে বেশি শ্রমিকের উপর আবেদন করার সুযোগ থাকবে।

তবে নিয়োগ কর্তার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নথিগুলো দেখানো লাগবে যেমন ভাউচার শ্রমিকের থাকার জায়গা সহ বেতন সম্পর্কে আরো বিস্তারিত তথ্যগুলো ইতালি সরকারকে দেখাতে হবে সেই সাথে পাসপোর্ট এর ফটোকপি এবং দক্ষ শ্রমিকদের ক্ষেত্রে দক্ষতার সনদ দরকার পড়বে।

বাংলাদেশ থেকে কতজন শ্রমিক যাবে

বিগত বছরগুলো থেকে প্রায় নির্দিষ্ট কোটা বেঁধে দেওয়া হলেও এ বছরে কিন্তু ২২ হাজারেরও বেশি কিন্তু মানুষ ইতালিতে কৃষি কাজের ভিসা নিয়ে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে এক্ষেত্রে ধরা বাধা নিয়মের বাইরেও কিন্তু বিভিন্ন এজেন্সির মাধ্যমে ইতালিতে কৃষি ভিসা নিয়ে যাওয়া যাবে বলে নিশ্চিত করেছে।

এ বছরে আবেদন জমা দেওয়ার ক্ষেত্রে নতুন একটি শর্ত দেওয়া হয়েছে এক্ষেত্রে নিয়োগকর্তাকে প্রথমে শ্রমিকের চাহিদা জানিয়ে কর্মসংস্থান দপ্তরের জন্য আবেদন করতে হবে পরবর্তীতে শ্রমিক সরবরাহ করার ক্ষেত্রে সনদ দেখাতে হবে। বিদেশ থেকে শ্রমিক নেওয়ার জন্য অবশ্যই প্রশাসন অফিস থেকে লুল্লা ওয়াস্তা অনুমোদন পত্র নিতে হবে এটি নিজ দেশের ইতালি দূতাবাস থেকে জমা দিয়ে ভিসা সংগ্রহ করতে হবে।

আরো পড়ুনঃ  বাংলাদেশ থেকে দুবাই যেতে কত টাকা লাগে

ইতালি কৃষি ভিসার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  • ছয় মাস মেয়াদী ভ্যালিড পাসপোর্ট
  • ৪ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি
  • এনআইডি কার্ডের ফটোকপি
  • কৃষি কাজে দক্ষতার প্রমাণ
  • কৃষি ভিসায় আবেদন ফরমের কপি
  • ইতালি দূতাবাসের সত্যায়িত কাগজপত্র
  • পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট
  • বিএমটি কর্তৃক নিবন্ধন কার্ড

এছাড়াও প্রয়োজনীয় আরো কিছু কাগজপত্র লাগবে এক্ষেত্রে মেডিকেল টেস্ট রিপোর্টসহ আরো অন্যান্য বিষয় গুলো দেখাতে হবে সেই সাথে প্রয়োজনীয় কিছু খরচ বাবদ কাগজপত্র উত্তোলনের ক্ষেত্রে টাকা জমা দেওয়া লাগে সেগুলো অবশ্যই অগ্রিমভাবে দেরিতে হবে। প্রয়োজনে আরো কিছু কাগজপত্র লাগলে পর্যায়ক্রমে আমরা নিচে কমেন্ট সেকশনে অথবা এই কন্টেন্টের মধ্যে আপডেট করে জানিয়ে দিব।

ইতালিতে যাওয়ার জন্য দুই ভাবে যাওয়া যায় এক্ষেত্রে আপনি যদি কৃষি ভিসা নিয়ে সিজনাল ভাবে যেতে চান সেভাবে পারবেন অথবা কৃষি নন সিজনাল ভিসা নিয়ে যদি যেতে চান তারপরেও সেভাবেও যাওয়ার সুযোগ রয়েছে তবে আমরা পর্যায়ক্রমে আলোচনা করব কিভাবে গেলে আপনি সবথেকে বেশি লাভবান হতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ  সুইজারল্যান্ড কাজের ভিসা ২০২৩(খরচ, আবেদন)

ইতালি কৃষি সিজনাল ভিসা

ইতালি কৃষি সিজনাল ভিসা মাধ্যমে মূলত যারা যায় তারা প্রত্যেক বছর যে কৃষি কাজের চাপ থাকে সেই সময় সিজনাল ভিসা নিয়ে অনেকে যেতে চাই এক্ষেত্রে নয় মাস মেয়াদী সিজনাল ভিসা পাওয়া যায়। এক্ষেত্রে চার লক্ষ টাকা পাঁচ লক্ষ টাকার মধ্যেই কৃষি সিজনাল ভিসা পাওয়া যায়।

এই ভিসা নিয়ে যাওয়ার জন্য অবশ্যই দূতাবাসের মাধ্যমে আপনাকে আবেদন করে যেতে হবে এক্ষেত্রে আপনার প্রয়োজনীয় কাজের উপর দক্ষতা এবং সেই অনুযায়ী বর্তমানে কৃষি কাজের চাহিদা আছে কিনা তারপরই তারা ভিসা দেওয়ার বিষয়টি চিন্তাভাবনা করে থাকে এক্ষেত্রে যখন চাপ থাকে তখন মূলত ভিসা খুব সহজে পাওয়া যায়।

ইতালি কৃষি নন সিজনাল ভিসা

ইতালিতে বর্তমানে যারা কৃষি কাজে ননসেজনাল ভিসা নিয়ে যেতে চাচ্ছেন তাদের কিন্তু লাভ বেশি হয়ে থাকে কেননা ননসেজনাল ভিসা তে মিনিমাম চার বছর পর্যন্ত থাকার সুযোগ থাকে এ ক্ষেত্রে বর্তমানে ২২ হাজার কর্মীর মধ্যে যারা নন সিজনার ভিসা নিয়ে যাবে তাদের ক্ষেত্রে কিন্তু পরবর্তীতে ইতালিতেও নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করার সুযোগ থাকবে।

আপনি যদি কৃষি কাজের চাহিদা পূরণ করার পাশাপাশি অন্যান্য কাজেও সময় দিতে পারেন সে ক্ষেত্রে কিন্তু আরো বেশি পরিমাণ বেতন তোলা সম্ভব এক্ষেত্রে আপনি কয়েকটা কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি থেকে নিয়োজিত থাকতে পারবেন। ইতালি কৃষিকাজের ভিসা নিয়ে ৩১শে ডিসেম্বর পর্যন্ত মূলত চলমান থাকবে এই প্রক্রিয়াটি।

এর মধ্যেই যে কোন সময় আপনারা ভিসার জন্য আবেদন করে যেতে পারবেন তবে বর্তমানে ইতালি সরকার এখন পর্যন্ত লিমিট করে দেয়নি এই ক্ষেত্রে বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন এজেন্সি গুলো তারা আগের তুলনায় বেশি পরিমাণ কর্মী পাঠাচ্ছে বলে দেখা যাচ্ছে। তাই সেই হিসেবে আপনারা যদি যেতে চান তাহলে এখনি ভিসার জন্য আবেদন সম্পন্ন করে রাখতে পারেন উপরে আমরা বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেছি।

ইতালি কৃষি ভিসা আবেদন ফরম

ইতালি কৃষি ভিসা আবেদন ফরম পূরণ করার জন্য https://visa.vfsglobal.com/ এই ওয়েবসাইটে ভিজিট করুন এবং প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো দিয়ে একটি মোবাইল ফোন এবং ইমেইল এড্রেস দিয়ে ভেরিফিকেশন সম্পন্ন করুন তারপরেই ইতালি কৃষি ভিসার জন্য আবেদন ফরমটি সম্পূর্ণ সার্টিফিকেট অনুযায়ী লিপিবদ্ধ করে সাবমিট করুন।

এবং প্রয়োজনীয় যে সমস্ত কাগজপত্র লাগবে সেগুলো ফাইলে এটাস্ট করে সেখানে সাবমিট করে রাখুন এক্ষেত্রে পরবর্তীতে যে কোন সময় ভাইবার জন্য অথবা ইতালি দূতাবাস থেকে আপনাদেরকে ডাক করতে পারে সেই অনুযায়ী আপনাদেরকে তাদের সাথে যোগাযোগ করে ভাইবা সম্পূর্ণ করতে হবে।

আরো পড়ুনঃ  কুয়েত যেতে কত বছর বয়স লাগে-কুয়েত যেতে কি কি লাগে

তাছাড়া আরো বিস্তারিত তথ্য জানার জন্য আমাদের এই কমেন্ট সেকশনে কমেন্ট করে জানিয়ে দিতে পারেন পর্যায়ক্রমে আমরা সেই বিষয়টি নিয়ে তুলে ধরার চেষ্টা করব আজকে আমরা আলোচনা করেছি ইতালি কৃষি ভিসা কিভাবে পাবেন এবং কত টাকা খরচ হবে এই সকল বিষয় নিয়ে আরো বিস্তারিত জানার জন্য আমাদের অন্যান্য কন্টেন্ট গুলো করতে পারেন।

ইতালিতে কৃষি ভিসা সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য জানার জন্য অবশ্যই বিএমইটি অথবা বুয়েসেলের মাধ্যমে এ বিষয়গুলো জেনে নিতে পারবেন তাছাড়া অন্যান্য যে কোন অবৈধ এজেন্সির মাধ্যমে যোগাযোগ করবেন না এক্ষেত্রে সরকার নিবন্ধিত যে সমস্ত এজেন্সি আছে তাদের মাধ্যমে যাওয়ার চেষ্টা করবেন আজকে আমরা মূলত আলোচনা করেছি ইতালি কৃষি ভিসা কিভাবে পাবেন এ সংক্রান্ত তথ্য গুলো নিয়ে পর্যায়ক্রমে আরো অন্যান্য তথ্যগুলো করতে হলে এখনই ভিজিট করুন আমাদের এই ওয়েবসাইটে।

ইতালি কৃষি ভিসাতে বেতন কত

বর্তমানে ইতালিতে কৃষি কাজে বেতন প্রায় ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা থেকে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত তবে এক্ষেত্রে যদি আপনি আরো বেশি পরিমাণে বেতন পেতে চান তাহলে উন্নত মানের কৃষি কাজের উপর দক্ষতা অর্জন করতে হবে।

ইতালি কৃষি ভিসায় আবেদনের শেষ সময়

আবেদন করার শেষ সময় নির্ধারিত আছে ৩১ এ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এই সময়ের মধ্যে আপনারা ২২ হাজার শ্রমিকের মধ্যে একজন শ্রমিক হিসেবে যেকোনো সময় আবেদন করে সরকার নিবন্ধিত এসেন্স গুলোর মাধ্যমে যেতে পারবেন।

ইতালিতে কর্মী কত নিবে

বর্তমানে প্রায় ৪৪ হাজার কর্মী নিবে ইতালি সরকার এক্ষেত্রে বর্তমানে শুধুমাত্র কৃষি ভিসার জন্য ২২ হাজার কর্মী নিবে এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ থেকে কত নিবে এখন পর্যন্ত কোনটা নির্ধারিত হয়নি।

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *