ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা ২০২৩, ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা খরচ কত

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা
ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা ২০২৩ এ বিদেশিদের সুযোগ-সুবিধা আগের তুলনায় অনেকটাই বৃদ্ধি করা হবে বলে জানা গিয়েছে। বর্তমানে আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষা প্রদান করছে ইতালির শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে প্রতিনিয়ত ইতালিতে পড়াশোনার উদ্দেশ্যে পাড়ি জমাচ্ছে স্টুডেন্টরা। তাই আজকে আমরা আপনাদেরকে জানিয়ে দিব কিভাবে আপনারা ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা করতে পারবেন এবং কত টাকা খরচ হবে এই নিয়ে বিস্তারিত।

ইতালিতে প্রায় ৯০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে যেগুলো আন্তর্জাতিকমানের। আর এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে প্রতিনিয়ত দেশী স্টুডেন্ট এবং বিদেশি স্টুডেন্টদের চাহিদা বাড়তে আছে। তাই আজকে আমরা এখানে ৯০ টিরও বেশী যে সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সুযোগ-সুবিধা রয়েছে এই সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয় গেলে কিভাবে আবেদন করবেন তা দেখিয়ে দিব।

ইতালিতে কেন পড়তে যাবেন

বর্তমান সময়ে স্টুডেন্টদের জন্য পড়াশোনার অন্যতম জায়গা হল ইতালি। এখানে অনেক বিশ্ব বিখ্যাত টপ রেংকিংবিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে। কম টিউশন ফি এর মধ্যেই পড়াশোনা করার সুযোগ থাকে ইতালিতে। তাই কেউ যদি কম খরচে বিদেশে পড়াশোনা করার ইচ্ছা করে তাহলে ইতালি হবে তার জন্য সবথেকে বেস্ট জায়গা।

এখানে শিক্ষাক্ষেত্রে নতুন বৈচিত্র দেখতে পাবেন পাশাপাশি ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা ২০২৩ স্টুডেন্টদের জন্য নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধা নিয়ে আসবে বলে জানিয়েছে ইতালি শিক্ষা মন্ত্রণালয়। ইতালিতে পড়াশোনা করার পাশাপাশি আপনি বিভিন্ন কোম্পানিতে কাজ করার সুযোগ করতে পারবেন এবং পার্ট-টাইম হিসাবে অন্যান্য জায়গায়ও কাজে নিয়োজিত থাকতে পারবেন।

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা ফ্রম বাংলাদেশ

ইতালিতে পড়াশোনা করার জন্য ইতালি স্টুডেন্ট ভিসার মাধ্যমে খুব সহজে বাংলাদেশ থেকে যেতে পারবেন। ইতালিতে স্টুডেন্ট ভিসা নিতে হলে আইএলটিএস করতে হবে পাশাপাশি এইচএসসি এবং এসএসসি তে ৩.৫০ থাকতে হবে তাহলেই স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন।

ইতালিতে স্টুডেন্ট ভিসার জন্য কিভাবে আবেদন করবেন এবং কোথায় আবেদন করতে হবে এবং কত টাকা খরচ হবে এই নিয়ে আমরা এই কনটেন্ট এর মাধ্যমেই বিস্তারিতভাবে তুলে ধরেছে আশাকরি আপনারা বিস্তারিতভাবে জানতে পারবেন।

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা ২০২৩

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা ২০২৩ এ আগের নিয়মেই স্টুডেন্টদেরকে ইতালির শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ভর্তি হওয়ার নিয়ম চালু আছেই। শুধুমাত্র যারা ইতালিতে স্কলারশিপ এর মাধ্যমে যাবে তাদের সুযোগ-সুবিধা আগের তুলনায় বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে যারা বেসরকারি মাধ্যমে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো তে পড়াশোনা করবে তাদের খরচ আগের তুলনায় অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে।

তাই আপনি যদি বেসরকারিভাবে ইতালিতে পড়াশোনা করার জন্য যেতে চান তাহলে এই কথাটি আগেই জেনে রাখতে হবে যে আগের তুলনায় কিন্তু খরচ বেড়ে গিয়েছে। সুযোগ-সুবিধা আগের তুলনায় অনেকটাই কমে গিয়েছে আপনি যদি আরো বেশি সুযোগ-সুবিধা নিতে চান তাহলে আরো বেশি খরচ বহন করা লাগতে পারে। তবে আপনার কলেজে অথবা ইউনিভার্সিটি তে যদি স্কলারশিপ ভালো সুযোগ তৈরী করে নিতে পারেন তাহলে অনেকটাই কম খরচে পড়াশোনা করতে পারবেন ইতালিতে।

আরো পড়ুনঃ  সৌদি আরবে কোন কাজের চাহিদা বেশি ( নতুন আপডেট )

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা খরচ কত

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসার জন্য খরচ করতে হবে ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা। তাছাড়াও বেসরকারিভাবে যদি ইতালিতে স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে পড়াশোনা করতে চান তাহলে এর থেকে বেশি খরচ পড়বে। শুধুমাত্র বাংলাদেশ থেকে ইতালি স্টুডেন্ট ভিসার খরচ এটা। অন্যান্য দেশের মাধ্যমে যদি যেতে চান তাহলে খরচ কিছুটা কম হতে পারে বা বেশি হতে পারে।

তবে বেসরকারিভাবে কোন এজেন্সির মাধ্যমে যদি স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে যেতে চান তাহলে আগের তুলনায় বৃদ্ধি পেয়েছে। কেননা বর্তমানে সব ধরনের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে আগের তুলনায় খরচ অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে সেই সাথে বিমান ভাড়া স্টুডেন্ট থাকার ব্যবস্থা সহ আনুষঙ্গিক অন্যান্য কাগজপত্র তৈরি করতে হলে খরচ আগের তুলনায় বেশি করতে হবে।

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদন

প্রথম অবস্থায় ইতালিতে আপনি কোন ইউনিভার্সিটি তে পড়াশোনা করতে চান সে ইউনিভার্সিটি তে স্কলারশিপ এর জন্য আবেদন করতে হবে। আবেদন করতে হলে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গুলো ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে জমা দিতে হবে পরবর্তীতে আবেদন একসেপ্ট করলে আপনাকে একটি ইনভাইটেশন লেটার পাঠাবে যেটা ইতালি দূতাবাস হতে সত্যায়িত করে নিতে হবে পরবর্তীতে পরবর্তীতে লেটার পাঠিয়ে দেওয়ার পরেই আপনি ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন।

তাছাড়া বেসরকারি মাধ্যমে যদি আপনি ইতালিতে স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে প্রবেশ করতে চান তাহলে সরাসরি সমস্ত এজেন্সির মাধ্যমে গিয়ে কাগজপত্র জমা দিয়ে ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন এই ক্ষেত্রে কি কি কাগজপত্র লাগবে তা নিচে আমরা বিস্তারিতভাবে তুলে ধরছি।

আরো পড়ুনঃ  কানাডা যেতে কত বয়স লাগে-কানাডা যেতে কত পয়েন্ট লাগে

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসার আবেদন করতে হলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রয়োজন আছে এবং সেইসাথে এই সমস্ত কাগজপত্র গুলো অবশ্যই সত্যায়িত করে তারপরেই দূতাবাসের মাধ্যমে তা জমা দিতে হবে। এবং সমস্ত কাগজপত্র গুলোতে যে সমস্ত স্বাক্ষর করার প্রয়োজন অথবা সত্যায়িত করার প্রয়োজন তা আগেই করে নিতে হবে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  • ৬ মাস মেয়াদি পাসপোর্ট
  • ৪ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি
  • ন্যাশনাল আইডি কার্ডের ফটোকপি
  • নিবন্ধন আইডি কার্ডের ফটোকপি
  • ছয় মাসের ব্যাংক স্টেটমেন্ট এর ফটোকপি
  • চেয়ারম্যান কর্তৃক সত্যায়িত সনদপত্র
  • আইএলটিএস স্কোর সার্টিফিকেট
  • মার্কশিট সহ সনদপত্র এবং সার্টিফিকেট প্রদান করতে হবে।

উপরুক্ত কাগজপত্রগুলো যদি কোনো ধরনের ভুল ত্রুটি থাকে তা আগে থেকেই সঠিকভাবে তা ঠিক করে নিতে হবে। কোন ধরনের ভুলত্রুটি থাকলে কিন্তু ভিসা কার্যক্রম আটকে যেতে পারে অথবা এটি বাতিল হয়ে যেতে পারে তাই অবশ্যই  ভুল ত্রুটি ঠিকঠাক করে নিতে হবে।

ইতালি স্পেশাল ক্লাস স্টুডেন্ট ভিসা

এই পেতে হলে আপনার পরিবারের কোনো সদস্য ইতালির বাসিন্দা হতে হবে অথবা সেখানে বসবাস করলেই এই ভিসাটি আপনি করতে পারবেন তবে ভিসা করার জন্য স্বাস্থ্য বীমা থাকতে হবে। ইতালি স্পেশাল স্টুডেন্ট ভিসার জন্য স্পন্সর এর কোনো প্রয়োজন নেই সরাসরি আপনার ওই আত্মীয়ের মাধ্যমে আপনি করে নিতে পারবেন।

ইতালি স্টুডেন্ট স্পেশাল ভিসার জন্য পড়ালেখা ছাড়া বিভিন্ন ধরনের কাজ করতে পারবেন এবং পরিবার আত্মীয় স্বজনের জন্য আলাদা আলাদা তৈরি করতে পারবেন। এবং স্পেশাল ক্লাস স্টুডেন্ট ভিসার জন্য কোন ধরনের খরচ করতে হয় না অথবা ট্রাভেল এজেন্সি থেকে আপনি সমাধান পেতে পারেন। আর এই সমস্ত ভিসার জন্য আবেদন করতে হলে সরাসরি ইতালি থেকেই আবেদন করতে হবে।

ইতালি গার্ডিয়ান স্টুডেন্ট ভিসা

ইতালি গার্ডিয়ান স্টুডেন্ট ভিসা পেতে হলে আপনার সদস্য কোন ব্যক্তি ইতালি প্রাক্তন বাসিন্দা হতে হবে। যদি কোন প্রাক্তন বাসিন্দা তার বাসস্থান খরচ বাবদ এবং পর্যাপ্ত অর্থ থাকে তা হলে কমপক্ষে তাকে 21 বছর বয়স হতে হবে। এবং স্পন্সর ভিসা মাধ্যমে খুব সহজেই সে গার্ডিয়ান স্টুডেন্ট ভিসা পেয়ে যাবে। টিউশান ফিস আনুষঙ্গিক অন্যান্য খরচ কম হবে।

এগুলো সাধারণত পাঁচ বছরের বৈধতা পাওয়া যায় পড়াশোনার পাশাপাশি আপনি সেখানে পার্টটাইম কাজ করার সুযোগ পাবেন স্টুডেন্ট ভিসার মাধ্যমে। তবে এক্ষেত্রে পাওয়ার জন্য আপনাকে মিনিমাম 30 হাজার টাকা থেকে শুরু করে 45 হাজার টাকা পর্যন্ত খরচ করা লাগতে পারে।

আরো পড়ুনঃ  কুয়েত কোম্পানি ভিসা বেতন কত-কুয়েতে সর্বনিম্ন বেতন কত

তবে এই ভিসাটি হাতে পাওয়ার পরে অবশ্যই আপনি অনলাইনের মাধ্যমে তা যাচাই বাছাই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করবেন তাছাড়া বিভিন্ন দালালের মাধ্যমে অথবা বিভিন্ন এজেন্সির মাধ্যমে যদি নিয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে কিন্তু অবশ্যই এই পদ্ধতিটা আপনাকে চেক করে নিতে হবে।

ইতালিতে স্টুডেন্টের থাকার খরচ কত

ইতালিতে একজন স্টুডেন্টের থাকার খরচ মান্থলি বারোশো ডলার খরচ পড়বে। তবে এক্ষেত্রে যদি কলেজের মধ্যে ভালো স্টুডেন্ট হতে পারেন অথবা ভালো মাল তুলতে পারেন তাহলে বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যায়। এক্ষেত্রে সরকারি যে সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলো রয়েছে এ সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পড়াশোনা করার জন্য একেবারেই কম খরচে পড়াশোনা করা যায়।

ইতালি স্টুডেন্ট থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা

ইতালিতে স্টুডেন্ট ভিসায় চান্স পাওয়ার পরে আপনি চাইলে ওই কলেজের প্রতিষ্ঠা অথবা আবাসিক ভবনে থাকতে পারবেন। তাছাড়াও আপনি ছাড়া ঐ প্রতিষ্ঠানের বাইরে অবস্থান করতে পারবেন এক্ষেত্রে আপনাকে খরচ একটু বেশি করতে হবে এবং পাশাপাশি কলেজ থেকে আবেদনপত্র জমা দিয়ে তারপরে আপনাকে বাইরে থাকতে হবে।

আরো পড়ুনঃ  অস্ট্রেলিয়া কৃষি ভিসা ২০২৩ | অস্ট্রেলিয়া কৃষি ভিসা আবেদন

তবে আন্তর্জাতিক মানের স্টুডেন্টদের জন্য থাকার ক্ষেত্রে কলেজ কর্তৃপক্ষ এই ব্যবস্থা করে থাকে তাই অবশ্যই মাধ্যমে আপনারা থাকতে পারেন পাশাপাশি আপনারা চাইলে নিজে কাজ করার ক্ষেত্রে অথবা অন্যান্য পাট টাইম জব করার ক্ষেত্রে বাইরে থাকতে পারবেন।

ইতালিতে স্টুডেন্ট অবস্থায় কাজ করার সুযোগ

ইতালিতে স্টুডেন্ট অবস্থায় কাজ করার সুযোগ-সুবিধা রয়েছে তবে এক্ষেত্রে স্টুডেন্ট ভিসা তে কাজ করতে হলে অবশ্যই প্রতিষ্ঠান হতে আপনাকে সময় বের করে নিতে হবে তবে অবশ্যই আপনাকে 75 পার্সেন্ট ঐ সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে উপস্থিত থাকার পরেই আপনি বাহিরে কাজ করার সুযোগ পাবেন।

সেই সাথে আপনার ফ্রি টাইমে অথবা বিভিন্ন কোম্পানিতে অথবা হোটেল-রেস্টুরেন্ট সহ অন্যান্য জায়গায় কাজ করার সুযোগ সুবিধা তৈরি করে নিতে পারবেন। এটি সম্পূর্ণভাবে নির্ভর করে আপনার প্রতিষ্ঠান এর সময়সূচী অনুযায়ী। সেই অনুযায়ী যদি আপনি বাহিরে জব করতে পারেন সেক্ষেত্রে তাদের কোনো সমস্যা নেই এক্ষেত্রে আপনি যদি সময় কভার করতে পারেন তাহলে আপনার জন্যই ভালো।

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা

 

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে সর্তকতা

ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা নেওয়ার পরে অবশ্যই আপনারা অনলাইনের মাধ্যমে তা যাচাই-বাছাই করে নিবেন। আপনি যখন ইতালি স্টুডেন্ট ভিসা হাতে পেয়ে যাবেন তখন ইতালি স্টুডেন্ট বিষয়টি অবশ্যই আপনার মোবাইলের মাধ্যমে অথবা কম্পিউটারের মাধ্যমে তা অনলাইনের মাধ্যমে চেক করে নিবেন।

অনেক সময় অনেক এজেন্সি রয়েছে যারা কিনা স্টুডেন্ট ভিসার নামে আপনাকে টুরিস্ট ভিসা দিতে পারে অথবা বিভিন্ন ধরনের ভেজাল ভিসা দিতে পারে তাই অবশ্যই ভিসাটি অনলাইনের মাধ্যমে চেক করে নিবেন তা না হলে আপনি বড় ধরনের ক্ষতির মধ্যে পড়তে পারেন।

আরো পড়ুনঃ  পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে সিঙ্গাপুর ভিসা চেক

সতর্কতাঃ

সতর্কতা স্বরূপ জানানো যাচ্ছে যে যেকোনো ধরনের ভিসা কার্যক্রম অবশ্যই অনলাইনের মাধ্যমে চেক করে নিবেন এবং দালালের মাধ্যমে এড়িয়ে চলবেন। দালালরা সাধারণত যে সমস্ত কার্যকলাপ করে থাকে তা প্রতারণামূলক তাই অবশ্যই এই প্রতারণামূলক কার্যক্রমগুলো এড়িয়ে চলার চেষ্টা করবেন।

পড়াশোনার উদ্দেশ্যে অথবা কাজের উদ্দেশ্যে যেতে চান তাহলে অবৈধ পদ্ধতি একেবারেই না করা উচিত সরাসরি পদ্ধতিতে এখন ইতালিতে খুব সহজে যাওয়া যায় তাই অবশ্যই বৈধ পদ্ধতিতে যাওয়ার চেষ্টা করবেন।

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *