কানাডা শ্রমিক ভিসা-কানাডা শ্রমিক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

কানাডা শ্রমিক ভিসা
কানাডা শ্রমিক ভিসা

কানাডা শ্রমিক ভিসা নিয়ে আজকে আমরা আপনাদের সঙ্গে আলোচনা করব। যেমন, কানাডা শ্রমিক ভিসা পাওয়ার সহজ উপায় সম্পর্কে। কানাডা শ্রমিক ভিসার খরচ সম্পর্কে। কানাডা শ্রমিক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। চলুন জেনে নেওয়া যাক কানাডার শ্রমিক ভিসা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য।

কানাডা শ্রমিক ভিসা

কানাডা অনেকেরই স্বপ্নের একটি দেশ। এই দেশে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দেশ থেকে কাজের জন্য মানুষ এসে থাকেন। তেমনি বাংলাদেশ থেকেও অনেক শ্রমিক নিয়ে থাকেন কানাডিয়ানরা। কানাডা শ্রমিক ভিসায় অনেক বাঙালি কানাডায় গিয়ে বিভিন্ন রকম কাজ করে থাকেন। মূলত আজকে আমরা কানাডা শ্রমিক ভিসা নিয়ে আলোচনা করব। কানাডা শ্রমিক ভিসা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই।

কানাডা শ্রমিক ভিসা পাওয়ার উপায়

কানাডা শ্রমিক ভিসা পাওয়ার সহজ উপায় হল যদি আপনার কোন আত্মীয় কানাডা থেকে থাকে তার সুপারিশ অথবা অনলাইনের মাধ্যমে কাজ পেয়ে কোম্পানির মাধ্যমে কানাডাতে যাওয়া। সরকারিভাবে ও কানাডা শ্রমিক ভিসা পাওয়া যায়। আপনারা বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে কানাডা যেতে পারবেন। যেমন, স্টুডেন্ট ক্যারাটে আপনি যেতে পারবেন। টুরিস্ট ক্যাটাগরিতে যেতে পারবেন। বিজনেস ক্যাটাগরিতে কানাডা প্রবেশ করতে পারবেন। ইত্যাদি রকম ভাবে আপনি কানাডা যেতে পারবেন বা আরও ক্যাটাগরি চালু রয়েছে কানাডা প্রবেশের ক্ষেত্রে।

আরো পড়ুনঃ  ইতালি টুরিস্ট ভিসা ২০২২ আবেদন, খরচ, সহ বিস্তারিত

কানাডা শ্রমিক ভিসা খরচ কত

কানাডা শ্রমিক ভিসা খরচ হয়ে থাকে প্রায় পাঁচ থেকে আট লক্ষ টাকা। আপনি এজেন্সি বা যে কোন মাধ্যমে যান না কেন আপনার প্রায় খরচ হয়ে থাকবে ৫ থেকে ৮ লক্ষ টাকার মত। তবে আপনি যদি দালালদের মাধ্যমে যান তাহলে আপনার খরচ তুলনামূলক ভাবে একটু বেশি হয়ে থাকবে। কানাডা যেহেতু অন্যান্য দেশের তুলনায় উন্নত দেশ সে কারণেই এই দেশে যেতে একটু বেশি টাকা খরচ হয়ে থাকে। তবে আপনি যদি দালালদের মাধ্যমে যেতে চান তাহলে দালালরা আপনার কাছ থেকে ১০-১২ লক্ষ টাকাও দাবি করতে পারে। সুতরাং আপনারা যাবার পূর্বে জেনে নেবেন কানাডা শ্রমিক ভিসা খরচ কত হয় সে সম্পর্কে।

কানাডা শ্রমিক ভিসা
কানাডা

কানাডা শ্রমিক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

কানাডাতে প্রতিবছর অন্যান্য দেশ থেকে অসংখ্য শ্রমিক নিয়ে থাকে কাজ করার জন্য। এই সকল শ্রমিক গুলো নেওয়ার জন্য তারা ওয়েবসাইটে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে থাকেন। বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের মাধ্যমে তারা তাদের কাঙ্খিত শ্রমিক নিয়ে থাকেন। সেই বিজ্ঞপ্তিতে অনেক জন বা অনেক ব্যক্তি এপ্লাই করে থাকে কাজ করার জন্য। যে সকল ব্যক্তি এপ্লাই করে এবং টিকে যায় তারা খুব সহজেই বিদেশ বা কানাডা চলে যেতে পারেন। যে কোম্পানিতে আপনি কাজ করার জন্য যাবেন বা যে কোম্পানিতে আপনি শ্রমিক হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন সেই কোম্পানি আপনাকে কানাডা নিয়ে যাবে তার জন্য সুপারিশ পত্র পাঠাবে। এর মাধ্যম দিয়ে আপনি খুব সহজেই কানাডা যেতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ  কাতার ক্লিনার ভিসা ২০২৩-কাতার ক্লিনার ভিসার বেতন

কানাডা শ্রমিক ভিসার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

কানাডা শ্রমিক ভিসার ক্ষেত্রে বেশ কিছু ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হয়ে থাকে। যে সকল ডকুমেন্টগুলো সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানি অথবা অনেকেই জানে না। কানাডা শ্রমিক ভিসার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গুলো হল।

  • আপনার অবশ্যই এসএসসি পাশের সার্টিফিকেট থাকতে হবে।
  • অবশ্যই আপনার পাসপোর্ট এর প্রয়োজন হবে।
  • পাসপোর্ট এর সর্বনিম্ন ৬ মাস বা তার বেশি মেয়াদ থাকতে হবে।
  • আপনার বয়স অবশ্যই 18 বছরের বেশি হতে হবে।
  • এন আই ডি কার্ড এর প্রয়োজন হবে।
  • করোনা ঠিক আকার এর প্রয়োজন হবে।
  • পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট এর প্রয়োজন হয়।
  • ব্যাংক ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হয়।
আরো পড়ুনঃ  কুয়েত কোন কাজের চাহিদা বেশি ( সহজ ২০ টি কাজ )

যেহেতু আপনারা কানাডা শ্রমিক ভিসায় যাচ্ছেন সেহেতু আপনি যে বিষয়ে অভিজ্ঞ সেই বিষয়ের উপর একটি সার্টিফিকেট অথবা ডকুমেন্টসের প্রয়োজন হবে। আপনাকে প্রমাণ করতে হবে যে আপনি আসলেও ওই বিষয়ের উপর অভিজ্ঞ অর্জন করেছেন।

কানাডা শ্রমিক ভিসায় বেতন

কানাডার চেয়ে অনেক বেশি বেতন প্রায় ৮০ থেকে ১ লক্ষ প্লাস। কানাডায় প্রায় সকল কাজের বেতন অন্যান্য দেশে তুলনায় অনেক বেশি হয়ে থাকে। কানাডায় কিছু কিছু কাজের বেতন এক থেকে দেড় লক্ষ টাকা হয়ে থাকে। কাজের ক্যাটাগরির উপর নির্ভর করে বেতন কম বেশি হয়ে থাকে। আবার কোম্পানি ভেদেও বেতন কমবেশি হয়।, যারা কাজে বেশি দক্ষ তাদের বেতন অন্যান্য দের তুলনায় একটু বেশি হয়ে থাকে। যারা প্রথম অবস্থায় কানাডায় গিয়ে কাজ করেন তাদের বেতন প্রায় ৫০ থেকে ৮০ হাজার এর মধ্যে হয়ে থাকে।

সরকারিভাবে কানাডা শ্রমিক ভিসা

সরকারিভাবে অথবা বেসরকারিভাবে আপনি শ্রমিক ভিসায় কানাডা যেতে পারবেন। তবে সরকারিভাবে যদি আপনি কানাডা যান তাহলে আপনার খরচ এবং সুযোগ সুবিধা সব কিছুই বেশি পাবেন। বেসরকারিভাবে গেলে আপনার খরচ হবে প্রায় আট লক্ষ টাকার আশেপাশে। কিন্তু আপনি যদি সরকারিভাবে কানাডাতে শ্রমিক ভিসা নিয়ে যান তাহলে আপনার খরচ হবে প্রায় ৫ লক্ষ টাকা।

আরো পড়ুনঃ  রোমানিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা চেক-রোমানিয়া সাবমিশন স্লিপ চেক

সরকারিভাবে কানাডা যেতে হলে আপনার যোগ্যতা এবং দক্ষতা উভয় এর প্রয়োজন হবে। যোগ্যতা অথবা দক্ষতা ছাড়া আপনি সরকারি ভাবে কানাডা যেতে পারবেন না। প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে সরকারিভাবে কানাডাতে শ্রমিক নিয়ে থাকেন কানাডিয়ান কোম্পানি বা সরকার। বাংলাদেশ থেকে আপনি যদি সরকারি ভাবে কানাডা যেতে পারেন তাহলে আপনার খরচ কম হবে এবং সুযোগ সুবিধা বেশি পাবেন।

সরকারিভাবে কানাডা শ্রমিক ভিসা খরচ কত

সরকারিভাবে কানাডা শ্রমিক ভিসা নিয়ে যেতে হলে আপনার খরচ হবে প্রায় চার থেকে পাঁচ লক্ষ টাকা। কানাডা যেহেতু উন্নত রাষ্ট্র সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ থেকে এই দেশে যেতে বেশি পরিমাণ টাকার প্রয়োজন হয়ে থাকে। তবে আপনি যদি সরকারি ভাবে বাংলাদেশ থেকে কানাডা যেতে চান তাহলে আপনার খরচ অন্যান্য ভিসা বা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ে অনেক বেশি সুযোগ-সুবিধা পাবেন এবং খরচ অনেক কম হবে। 5 লক্ষ টাকা দিয়ে আপনি সরকারিভাবে খুব সহজেই কানাডা শ্রমিক ভিসা নিয়ে প্রবেশ করতে পারবেন। তবে অবশ্যই আপনার বয়স ১৮ বছর এর বেশি লাগবে এবং আপনি যে কাজের জন্য যাবেন সে বিষয়ে অভিজ্ঞতা লাভ করতে হবে।

কানাডা শ্রমিকদের কাজের লিস্ট

কানাডা গিয়ে শ্রমিকরা বিভিন্ন ধরনের কাজ করে থাকেন। বাংলাদেশ থেকে কানাডাতে প্রতিবছর অনেক পরিমাণ মানুষ যেয়ে থাকেন কাজ করার জন্য। সেখানে গিয়ে বাঙালিরা অনেক রকম কাজ করে থাকে। যা নিচে উল্লেখ করা হলো।

কানাডা শ্রমিকদের কাজের লিস্ট
ডি ক্যাটাগরি
ক্লিনার
এগ্রিকালচার
কন্সট্রাকশন
রেস্টুরেন্ট
হোটেল
ড্রাইভিং
সি ক্যাটাগরি
লেবার
সেলস রিপ্রেজেন্টেটিভ
সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার
একাউন্ট ম্যানেজার
আইটি প্রজেক্ট ম্যানেজার

কানাডা শ্রমিকদের বেশ কয়েকটি লিস্ট আমরা তুলে ধরেছি। তবে এই কাজগুলোই শেষ নয় বাঙালিরা বা শ্রমিকরা কানাডায় গিয়ে আরো অন্যান্য কাজগুলোও করে থাকেন। বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ভিন্ন ভিন্ন রকম কাজ রয়েছে যেগুলো আমরা অনেকেই জানিনা। অনেক কাজের মধ্যে থেকে আমরা কয়েকটি কাজ নিয়ে আপনাদের সঙ্গে আলোচনা করলাম।

আরো পড়ুনঃ  জাপান ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ২০২৩-জাপান জব ভিসা ২০২৩

কানাডা শ্রমিক ভিসায় কি কাজ করা হয়

কানাডা শ্রমিক ভিসায় গিয়ে মূলত অনেক রকমের কাজ করে থাকেন শ্রমিকরা। একজন বাংলাদেশী বা অন্য দেশের শ্রমিকরা কানাডা গিয়ে মূলত এই সকল কাজগুলো করে থাকেন। বিভিন্ন ক্ষেত্রে কাজের পরিবর্তন দেখা যেতে পারে কারণ একজন শ্রমিক এক এক রকম কাজ করে থাকেন। যে সকল কাজগুলো কানাডায় গিয়ে শ্রমিকরা করে থাকেন তার মধ্যে কয়েকটি নিচে উল্লেখ করা হলো।

  • ক্লিনার
  • কানাডাসি ক্যাটাগরি
  • ড্রাইভিং
  •  শ্রমিসফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার
  • কদের কাজের লিস্ট
  • ডি ক্যাটাগরি
  • হোটেল
  • কন্সট্রাকশন
  • রেস্টুরেন্ট
  • এগ্রিকালচার
  • সেলস রিপ্রেজেন্টেটিভ
  • লেবার
  • একাউন্ট ম্যানেজার
  • আইটি প্রজেক্ট ম্যানেজার

আরো অন্যান্য কাজগুলো ও করে থাকেন বিভিন্ন শ্রমিকরা। আমরা মূলত এই কয়েকটি নিয়ে আপনাদের সঙ্গে আলোচনা করলাম। কানাডাতে শ্রমিকদের চাহিদা অনেক বেশি যে কারণে সকলেই গিয়ে কানাডাতে খুব সহজেই কাজ পেয়ে যান।

আরো পড়ুনঃ  কানাডা কাজের ভিসা ২০২৩, কানাডা ওয়ার্ক পারমিট প্রসেসিং

কানাডা শ্রমিক ভিসা আবেদনের নিয়ম

কানাডা শ্রমিক ভিসায় আবেদন করতে হলে অবশ্যই আপনার বেশ কিছু ডকুমেন্টস বা কাগজপত্র এর প্রয়োজন হবে। আবেদন করার পূর্বে ডকুমেন্টগুলো ভালোভাবে রেখে দিবেন তাহলে আবেদন করার সময় সমস্যার সম্মুখে হতে হবে না। আবেদন করার জন্য আপনাকে মূল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে যে কোন ব্রাউজার ওপেন করে। তারপর সেখানে গিয়ে আপনি ফর্ম এর সাহায্যে আবেদন করতে পারবেন। এখন সবকিছুই ঘরে বসে অনলাইনে মাধ্যমে করা সম্ভব হচ্ছে সুতরাং আপনি চাইলে কানাডার শ্রমিক ভিসার আবেদনের নিয়ম টা নিজে নিজেই অনলাইনের মাধ্যমে করতে পারেন।

কানাডা শ্রমিক ভিসা ফরম

কানাডার শ্রমিক ভিসা পাবার জন্য সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ হল ভিসা ফর্ম বা ভিসা অ্যাপ্লিকেশন। ভিসা অ্যাপ্লিকেশন ছাড়া কখনোই কানাডায় শ্রমিক ভিসা পাওয়া সম্ভব নয়। হতে পারে ভিসাটি আপনি অনলাইন অথবা অফলাইন থেকে করতে পারেন তবে ভিসা অ্যাপ্লিকেশন আপনাকে করতে হবে। কানাডা শ্রমিক ভিসা ফর্ম আপনারা অনলাইন থেকে সংগ্রহ করতে পারবেন, তবে ভিসা ফর্ম পূরণ করতে যদি অসুবিধা মনে হয় তাহলে যে কোন এজেন্সি সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। এক্ষেত্রে সরকারি এজেন্সি গুলোর সঙ্গে যোগাযোগ করাটাই সব থেকে বেশি ভালো। মনে রাখবেন ভিসা ফর্ম যদি ভুল হয় তাহলে আপনি কোনভাবেই শ্রমিক ভিসা পাবেন না, বেশি আবেদন করতে যে টাকা খরচ হবে সেটাও আপনাকে আর ফেরত দেওয়া হবে না।

কানাডা শ্রমিক ভিসার সুযোগ সুবিধা

বাংলাদেশে অবস্থিত কানাডার দূতাবাস শ্রমিকদেরকে নিয়ে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে তা সত্যিই স্বস্থির কারণ।কানাডায় শ্রমিক ভিসার সুযোগ-সুবিধা নিয়ে আলোচনা করলে শেষ হবে না। কারণ এটি এমন একটি দেশ যেখানে শ্রমিকদের সর্বাধিক সম্মান দেওয়া হয়। মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশ আছে যেখানে শ্রমিক দিক দিয়ে ব্যাপকভাবে নির্যাতন ও অত্যাচার করা হয়। কিন্তু কানাডায় শ্রমিকদের বিরুদ্ধে অত্যাচার নির্যাতনের আজ পর্যন্ত কোন নজির নেই। কানাডা সরকার শ্রমিকদের কে নিয়ে খুব ভালো কিছু আইন তৈরি করেছেন যাতে করে প্রবাসী শ্রমিকরা খুব ভালোভাবেই কানাডায় বসবাস করতে পারে।

দেশের বাইরে থেকে কানাডা শ্রমিক ভিসা কিভাবে পাবেন

বর্তমান সময়ে অনেকে দেশের বাহিরে থেকে কানাডা শ্রমিক ভিসা পাওয়ার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেন। কিন্তু দেশের বাইরে থেকে কিভাবে এই কানাডা শ্রমিক হিসাব পেতে হয় সে সম্পর্কে জানে না এ প্রশ্নের উত্তরে বলা যায় কানাডা শ্রমিক ভিসা দেশের বাইরে থেকে পাওয়া কঠিন কোনো বিষয় নয়। খুব সহজেই অনলাইন থেকে কানাডা শ্রমিক ভিসা ফর্ম পূরণ করে আপনি ভিসা পেতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে বেশ কিছু জটিলতা দেখা দিতে পারে।

দেশের বাইরে থেকে কানাডা শ্রমিক ভিসা পাওয়ার  আরেকটি উপায় হল বাংলাদেশ বোয়েসেল এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করা।  অনুমোদিত এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করে খুব সহজেই আপনি দেশের বাহির থেকেও কানাডা শ্রমিক ভিসার সংগ্রহ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনার যত রিক্রুটমেন্ট প্রয়োজন সবগুলো রিক্রুটমেন্ট সংগ্রহ করতে এজেন্সি সর্বদা সাহায্য করবে। তবে আপনি যদি কোন জালিয়াতি করার চেষ্টা করেন এক্ষেত্রে আপনাকে আইনের আওতায় আনা হবে এবং কঠিন শাস্তি ও হতে পারে।

 

 

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *