গ্রীস কৃষি ভিসা ২০২৩ আবেদন ফ্রম

গ্রীস কৃষি ভিসা নিয়োগ
গ্রীস কৃষি ভিসা নিয়োগ

গ্রীস কৃষি ভিসা আবেদন ফ্রম নিয়ে আজকে আমরা বিস্তারিতভাবে আপনাদের মাঝে তুলে ধরবো। ২০২৩ সালে গ্রীস কৃষি ভিসা নিয়ে কিভাবে যাবেন এবং কত টাকা খরচ হবে এবং গ্রীস কৃষি ভিসা আবেদন ফর্ম কিভাবে সংগ্রহ করবেন। তা সকল বিষয়গুলো আজকে আমরা এখানে তুলে ধরব। মূলত দুবাই মালয়েশিয়া বা অন্যান্য রাষ্ট্রগুলোতে যাওয়ার প্রস্তুত সম্পর্কে অনেকেই জানে কিন্তু গ্রীস কৃষি ভিসা সম্পর্কে অনেকেই জানে না। তাই এগুলো নিয়ে বিস্তারিত জানতে হলে আজকের এই মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

বিগত বছরগুলো থেকেই গ্রীস কৃষি ভিসা নিয়ে বাংলাদেশ থেকে অনেকেই কাজে যাচ্ছে। এর আগে বিগত বছরগুলোতে কিন্তু ইন্ডিয়া গ্রীস দূতাবাস হতেই গ্রীস কৃষি ভিসা সংগ্রহ করা লাগতো। কিন্তু বর্তমানে কৃষি ভিসা বাংলাদেশের ঢাকা গ্রীস ভিসা কেন্দ্র হতে কিন্তু সংগ্রহ করতে পারবেন এক্ষেত্রে রিস্ক কৃষি ভিসা আবেদন করার জন্য প্রথম অবস্থায় আপনাকে অ্যাপার্টমেন্ট নিতে হবে তারপরে গ্রিস আপনারা জন্য আবেদন করতে পারবেন।

দুবাই মালয়েশিয়া সিঙ্গাপুর কিন্তু অন্যান্য পলিসি সিস্টেমে যাওয়া লাগে কিন্তু গ্রিসে যাওয়ার ক্ষেত্রে কিন্তু একটু ভিন্ন পদ্ধতি অবলম্বন করা লাগে এক্ষেত্রে কি কি প্রসেস করা লাগে এবং প্রয়োজনীয় কি কি কাগজপত্র লাগে সকল বিষয়গুলো নিয়ে আপনাদেরকে জানাবো। এবং গ্রীস কৃষি যাওয়ার জন্য কত টাকা খরচ হয় সেগুলো জানতে পারবেন এবং কোন এজেন্সির মাধ্যমে যাওয়া সব থেকে নিরাপদ সেটাও জেনে নিন।

গ্রীস কৃষি ভিসা ২০২৩

২০২৩ সালে সম্পূর্ণ ভাবে ঢাকা গ্রীস ভিসা কেন্দ্রের মাধ্যমেই গ্রীস কৃষি ভিসার জন্য আবেদন করা যাচ্ছে। এখন থেকে আর আগের মতো ইন্ডিয়া গ্রীস দূতাবাস হতে গ্রীস কৃষি ভিসা আবেদন করা লাগবে না। সরাসরি বাংলাদেশের ঢাকা থেকে আপনারা গ্রীস কৃষি ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আগেই আপনাকে অনলাইন থেকে অ্যাপার্টমেন্ট লেটার নিয়ে অফিসে গিয়ে ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে। এপার্টমেন্ট নেওয়ার ক্ষেত্রে আপনার ফোন নাম্বার এবং প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো দিয়ে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়ে গেলেই পরবর্তীতে আপনাকে এসএমএস এর মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।

সেই সময় অনুযায়ী আপনাকে ঢাকা কেন্দ্রের মাধ্যমে গ্রীস কৃষি বিচার আবেদন করতে হবে। আবেদন করার জন্য অবশ্যই প্রয়োজনীয় কিছু কাগজপত্র নিয়ে যেতে হবে এক্ষেত্রে কি কি কাগজপত্র লাগবে এবং কত টাকা খরচ হবে তা সকল বিষয়গুলো নিয়ে বিস্তারিতভাবে নিচে তুলে ধরা হয়েছে। আপনাদের আগে জেনে রাখা উচিত যে ২০২৩ সালের গ্রীস কৃষি ভিসা কিন্তু সম্পূর্ণভাবেই চালু আছে। এক্ষেত্রে ভিসার দাম কত এবং এখন খরচ কত যাচ্ছে তা জেনে নিন।

আরো পড়ুনঃ  ওমান কাজের ভিসা ২০২৩-ওমান ভিসার দাম কত

বিগত বছরগুলো থেকেই কিন্তু কৃষি কাজ নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে বাংলাদেশের মানুষজন সেখানে পাড়ি জমিয়েছে কিন্তু গ্রিসের নতুন ভাবে কাজের উদ্দেশ্যে অনেকেই যাওয়ার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করছে কিন্তু অনেকেই সম্পূর্ণ প্রসেস জানেনা কিন্তু কিভাবে যাবেন এবং কত টাকা খরচ হবে সে বিষয়গুলো জানে না তাহলে চলুন এ বিষয়গুলো আগে জেনে নেওয়া যাক।

গ্রীস কৃষি ভিসা আবেদন ২০২৩

গ্রীস কৃষি ভিসা আবেদন করার জন্য https://bd-gr.gvcworld.eu/ এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে গ্রীস কৃষি ভিসার আবেদন সম্পন্ন করতে হবে। গ্রীস কৃষি ভিসা আবেদন করার জন্য প্রথমে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পরে ফোন নাম্বার এবং ইমেইল এড্রেস দিয়ে একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করতে হবে। একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন হয়ে গেলে অ্যাপার্টমেন্ট লেটারের জন্য আবেদন করতে হবে আবেদন সম্পন্ন হয়ে গেলে পরবর্তীতে ঢাকা গ্রীস ভিসা অফিস থেকে এসএমএস এর মাধ্যমে আপনার সময় জানিয়ে দেওয়া হবে সে অনুযায়ী তাদের সাথে মিট করার সুযোগ পাবেন।

তার পরে আপনার প্রয়োজনীয় ভিসা অনুযায়ী আবেদন করার জন্য গ্রীস কৃষি ভিসা আবেদন ফরম উত্তোলন করতে হবে। আবেদন ফরম উত্তোলন করার পরে প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো দিয়ে আবেদন ফরমটি পূরণ করে সেখানে জমা দিতে হবে পরবর্তীতে আপনার ভাইবা অথবা প্রয়োজনীয় পরীক্ষা এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গুলো নিয়ে সেখানে পুনরায় যাওয়া লাগবে তারপরেই আপনার প্রয়োজনীয় প্রসেস গুলো সম্পন্ন হয়ে গেলেই গ্রীস কৃষি ভিসা আপনি পেয়ে যাবেন।

আরো পড়ুনঃ  মালয়েশিয়া ইলেকট্রিক ভিসা ও ইলেকট্রিক কাজের বেতন কত

গ্রীস কৃষি ভিসার দাম কত

বর্তমানে ঢাকা গ্রীস ভিসা কেন্দ্রের মাধ্যমে গ্রীস কৃষি ভিসা নিয়ে যেতে হলে খরচ পড়বে প্রায়ই ১০ লাখ। তবে এক্ষেত্রে যদি দেশের বাহির থেকে অন্যান্য দেশের দূতাবাসের মাধ্যমে গ্রীস কৃষি ভিসা নিয়ে যান তাহলে খরচ কিছুটা কম হবে ক্ষেত্রে ৭ লাখ টাকার মধ্যেই গ্রীস কৃষি ভিসা পেয়ে যাবেন। দেশের বাহির থেকে গ্রীস কৃষি ভিসা সংগ্রহ করতে হলে সেই দেশের নিয়ম অনুযায়ী আপনাকে যেতে হবে তাছাড়া অনেক দালাল রয়েছে যারা কিনা বিভিন্ন পদ্ধতিতে অথবা বিভিন্ন উপায়ে তারা গ্রীস কৃষি ভিসা নিয়ে পাঠিয়ে থাকে।

তবে সবথেকে ভালো হয় আপনি যদি পরিচিত কোন এজেন্সির মাধ্যমে যেতে পারেন এক্ষেত্রে বাংলাদেশে অনেক এজেন্সি রয়েছে যারা বিভিন্ন উপায়ে পাঠিয়ে দিতে পারে এক্ষেত্রে বৈধ এজেন্সিদের সাথে যোগাযোগ করার জন্য আপনাদের অবশ্যই একটু ধৈর্য ধরে খুঁজে নিতে হবে। এক্ষেত্রে অনেক এজেন্সি রয়েছে যারা কিনা অন্যান্য দেশের মাধ্যমে বৈধ উপায়ে পাঠিয়ে থাকে তাই সেই উপায়গুলো ফলো করার চেষ্টা করুন তা না হলে কিন্তু পরবর্তীতে সমস্যা হয়ে থাকে।

গ্রীস কৃষি ভিসা কিভাবে পাবেন

ব্রিজ কৃষি ভিসা পাওয়া আগের তুলনায় অনেকটাই সহজ একটি ব্যাপার আগে ইন্ডিয়া বা অন্যান্য গ্রীস দূতাবাসের মাধ্যমে আবেদন করা লাগতো তবে এখন চাইলেই আপনি বাংলাদেশের ঢাকা কেন্দ্রের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন। এই কেন্দ্রের মাধ্যমে এখন খুব সহজে আবেদন করা যাচ্ছে যে কোন কাজের ভিসার জন্য। তাই আপনি যদি কৃষি ভিসার মাধ্যমে স্পেসিফিক ভাবে যেতে চান অথবা এই কৃষি কাজ নিয়ে যেতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে কৃষি কাজের যেকোনো নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী আবেদন করতে হবে।

এর আগে শুধুমাত্র সরকারি উপায়গুলো বিএমইটি অথবা বুয়েসেল নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী যাওয়া যেত কিন্তু বর্তমানে বাংলাদেশে ভিসা কেন্দ্র খোলার কারণে বর্তমানে অনেকেই কৃষি ভিসা সহ অন্যান্য ভিসা নিয়ে গ্রিসে যাচ্ছে। আমরা আজকে আপনাদেরকে কয়েকটি উপায় বলবো যেগুলোর মাধ্যমে আপনারা খুব সহজেই যেতে পারবেন।

  • গ্রীস ওয়ার্ক পারমিট ভিসা
  • গ্রীস কৃষি ভিসা
  • গ্রীস কেয়ারিং ভিসা
  • গ্রীস স্টুডেন্ট ভিসা
  • গ্রীস ড্রাইভিং ভিসা
  • গ্রীস ফ্যাক্টরি ভিসা
  • গ্রীস রেস্টুরেন্ট ভিসা
আরো পড়ুনঃ  সৌদি আরবে কোন কাজের চাহিদা বেশি ( নতুন আপডেট )

এই কয়েক ধরনের ভিসা ক্যাটাগরি ছাড়াও আরো অনেক ধরনের ভিসা ক্যাটাগরি রয়েছে যেগুলো নিয়ে আপনারা খুব সহজেই গ্রিসে যেতে পারবেন। বর্তমানে সকল ধরনের ভিসা বাংলাদেশের ঢাকা গ্রীস ভিসা কেন্দ্রের মাধ্যমেই আবেদন করা যাচ্ছে আজকে আমরা স্পেসিফিক ভাবে গ্রীস কৃষি ভিসা নিয়ে এখানে বিস্তারিত ভাবে তুলে ধরেছি।

পরিচিত কোন ব্যক্তি যদি গ্রিসে অবস্থান করে তাহলে কিন্তু গ্রীস কৃষি ভিসা তৈরি করা তেমন কোন কঠিন ব্যাপার না খুব সহজেই গ্রীস কৃষি ভিসা তৈরি করে বাংলাদেশ থেকে নিয়ে যেতে পারবে এক্ষেত্রে অনেক টাকা খরচ কম হবে শুধুমাত্র বিমান ভাড়া এবং প্রয়োজনীয় কিছু খরচ আছে সেগুলো দিলেই আপনারা খুব সহজেই গ্রীস কৃষি ভিসা পেয়ে যাবেন

দেশের বাহির থেকে অনেক সরকারি এজেন্সি অথবা বিদেশি এজেন্সি রয়েছে যেমন ইন্ডিয়া অনেক এজেন্সি আছে অথবা পাকিস্তানের অনেকে এজেন্সি আছে যারা কিনা কম খরচেই স্বল্প মেয়াদে গ্রিসের কৃষি ভিসা দিয়ে থাকে তাদের মাধ্যমেও যেতে পারবেন তবে খরচ কিছুটা কম হলেও কিন্তু আপনি কাজের সময় পাচ্ছেন এবং বর্তমানে অনেক টাকা বেতন বেশি পাওয়ার পাওয়ার কারণেই মূলত অনেকেই স্বল্প মেয়াদী ভিসা নিয়ে অনেকেই যাচ্ছে।

গ্রীস কৃষি ভিসা আবেদন ফ্রম

গ্রীস কৃষি ভিসা আবেদন ফরম এর জন্য https://bd-gr.gvcworld.eu/en/about-global-visa-center-world লিঙ্কে গিয়ে প্রথমে অ্যাপার্টমেন্ট লেটার নিতে হবে। সিরিয়াল অনুযায়ী ভিসা কেন্দ্রে গিয়ে আবেদন ফরম উত্তোলন করতে হবে। আবেদন ফরম উত্তোলন করার পরে আপনি কি ধরনের ভিসা নিতে চাচ্ছেন সেই অনুযায়ী ভিসা ক্যাটাগরি সিলেক্ট করে আবেদন ফরম সম্পন্ন করতে হবে। এক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় কিছু যোগ্যতা থাকতে হবে সেই অনুযায়ী আপনাকে ভিসা নির্বাচন করতে হবে।

এক্ষেত্রে সরাসরি আপনারা ভিসা কেন্দ্রে গিয়ে বিস্তারিত ভাবে তথ্যগুলো জেনে নিতে পারবেন তবে অবশ্যই প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গুলো সঙ্গে নিয়ে যাবেন। তার আগে অবশ্যই উপরের দেওয়া লিঙ্ক থেকে বিস্তারিত তথ্যগুলো জেনে নিবেন এবং অগ্রিম ভাবে অ্যাপার্টমেন্ট লেটারের জন্য আবেদন করবেন। এপয়েন্টমেন্ট লেটার ছাড়া গ্রিস ভিসা কেন্দ্রে গিয়ে কোন তথ্য পাবেন না তাই অনলাইন থেকে আগে থেকেই আপনারা অ্যাপার্টমেন্ট সংগ্রহ করুন।

আরো পড়ুনঃ  আমেরিকার সর্বনিম্ন বেতন কত

গ্রীস কৃষি ভিসা বেতন কত

বর্তমানে গ্রীস কৃষি ভিসাতে বেতন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় দেড় লক্ষ টাকা থেকে ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত। বর্তমানে যারা কৃষি কাজে নিয়োজিত আছে তারা সাধারণত ক্ষেত-খামার মাছ চাষ এবং আবাদি ফসল উৎপাদনের কাজ করছে। এই কাজগুলো তেমন একটি কঠিন না শুধুমাত্র ডিজিটাল পদ্ধতি গুলো ব্যবহার করে এ কাজগুলো করতে হয়। অন্যান্য দেশের মতো গ্রিসের কৃষি কাজগুলো অনেকটাই সহজ এবং বেতন বেশি।

বর্তমানে যারা আছে তারা সাধারণত পাশাপাশি নিজেই নার্সারি অথবা অনেক কৃষি কাজে নিজেকে নিয়োজিত রেখেছে এবং সেখান থেকে ভালো ফসল উৎপাদন করে গ্রিসের বাজারে বিক্রি করছে। বাংলাদেশের অনেক লোক গ্রিসে গিয়ে নিজেই কৃষি কাজে নিয়োজিত হয়ে সেখানে কৃষি বাজারে ব্যবসা শুরু করেছে। তাই চাইলে সেখানে গিয়ে নিজেও আপনারা চাইলে কৃষি কাজে স্বাবলম্বী হতে পারবেন।

গ্রিসে কয়েকটি ক্যাটাগরিতে যাওয়ার উপায় আছে তার মধ্যে আপনারা গ্রীস কৃষি ভিসা নিয়ে যেতে পারবেন। গ্রিসের কৃষি কাজে উন্নতি করার লক্ষ্যেই গ্রীস সরকার বিভিন্ন দেশ থেকে কৃষি অভিজ্ঞদের সেখানে কাজ করার সুযোগ করে দিচ্ছে। তাই এই সুযোগেই বিভিন্ন এজেন্সি গুলো তারা এই ভিসা সার্ভিসটি চালু করেছে এবং নতুন নতুন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী তারা গ্রীস কৃষি ভিসা আবেদন করে অনেকেই সেখানে কাজ করছেন।

আরো পড়ুনঃ  সৌদি আরবের আল মারাই কোম্পানি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

গ্রীস কৃষি ভিসা নিয়োগ 2024

2024 সালের প্রথমের দিকে ব্যাপকভাবে কৃষি শ্রমিক নিবে বলে গ্রীস সরকার জানিয়েছে। গ্রিসে কৃষি কাজে উন্নতি করার লক্ষ্যে মূলত এই নতুন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছে উত্তর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে কৃষি পারদর্শীদের সুযোগ-সুবিধা বেশি থাকবে এবং তাদের অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা সহ বেতন বৃদ্ধি করা হবে বলে গ্রীস সরকার জানিয়েছে। নতুন এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী আবেদন করতে হলে সরাসরি গ্রীসের যে কোন দূরতবাস থেকে আবেদন করা যাবে বলেও নিশ্চিত করেছে।

গ্রীস কৃষি ভিসাপ্রথম পাতা
গ্রীস কৃষি বেতন১ লাখ ৫০ হাজার টাকা
গ্রিসভিসা আবেদনঢাকা ভিসা কেন্দ্র
আবেদনের শর্তকৃষি কাজে পারদর্শী
নিয়োগ সংক্রান্ত তথ্যঅফিশিয়াল নোটিশে
আবেদনের বয়সসীমা২২ থেকে ৩৫
আবেদনের মাধ্যমঅনলাইনে আবেদন

তাই ২০২৪ সালের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী আবেদন করার জন্য প্রয়োজনীয় কিছু কাগজপত্র আগে থেকে সংগ্রহ করে রাখতে হবে তাহলে আপনারা যে কোন সময় নতুন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী আবেদন করতে পারবেন আবেদন করার জন্য। আমাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী খুব সহজে আবেদন সম্পন্ন করুন এক্ষেত্রে কি কি প্রয়োজনীয় কাগজপত্র লাগবে তার নিচে তুলে ধরা হলো।

গ্রিস কৃষি ভিসা আবেদনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

গ্রীস কৃষি ভিসা আবেদন করার জন্য প্রয়োজনীয় কিছু কাগজপত্র লাগবে সেগুলো আবেদন ফরমে লিখার পাশাপাশি আবেদন ফরম এর সাথে পাঠাতে হবে এক্ষেত্রে অনলাইনে যদি করেন তাহলে স্ক্যান করে পাঠাতে হবে অথবা অফলাইনে যদি আবেদন করেন তাহলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় কাগজগুলো আবেদন ফরম এর সাথে এটাস্ট করে পাঠিয়ে দিতে হবে। কি কি কাগজপত্র লাগবে তা নিচে বিস্তারিতভাবে তুলে ধরা হলো।

  • ৬ মাসের বেশি মেয়াদ থাকতে হবে পাসপোর্ট এর
  • পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট থাকতে হবে
  • মেডিকেল রিপোর্ট সার্টিফিকেট লাস্ট দুই মাসের
  • ছয় মাসের ব্যাংক স্টেটমেন্ট এর কপি দেখাতে হবে
  • কৃষি কাজে পারদর্শী হতে হবে
  • ইংলিশ বিষয়ে দক্ষতা থাকতে হবে
  • লাস্ট শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ দেখাতে হবে
  • পূর্বে কোথাও কৃষি কাজে নিয়োজিত থাকলে তার প্রমাণ
  • পূর্বে কোন দেশে ভ্রমণ করলে তার প্রমাণ
  • পাসপোর্ট এর ১০ পৃষ্ঠা অবশিষ্ট থাকতে হবে
  • এনআইডি কার্ডের ফটোকপি দেখাতে হবে

এছাড়া প্রয়োজনে আরো কিছু কাগজপত্র লাগবে সেগুলো আপনাদের ভিসা কেন্দ্রের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হবে এছাড়া আগে যদি আপনারা এই বিষয়ে জানতে চান তাহলে তাদের সাপোর্ট সেন্টারে যোগাযোগ করে বিস্তারিতভাবে জেনে নিতে হবে সাপোর্ট সেন্টারে যোগাযোগ করার জন্য নিচের দেওয়া লিঙ্ক থেকে আপনারা খুব সহজে জেনে নিতে পারবেন বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন

আজকে আমরা গ্রীস কাজের ভিসা নিয়ে বিস্তারিতভাবে আপনাদেরকে তুলে ধরেছি পরবর্তীতে গ্রিসের অন্যান্য ভিসা সংক্রান্ত তথ্য গুলো জানার জন্য আমাদের দেওয়া লিংক থেকে বিস্তারিত ভাবে আরো তথ্যগুলো জেনে নিতে পারেন এবং অন্যান্য দেশের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি সংক্রান্ত তথ্য গুলো জানার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটের হোম পেজে প্রবেশ করুন। এবং গ্রীস সহ আরো অন্যান্য দেশের ভিসা সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে তথ্যগুলো জানুন এবং নতুন নতুন কাজের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি সংক্রান্ত বিষয়গুলো জানতে আমাদের এই ওয়েবসাইটে চোখ রাখুন ধন্যবাদ সবাইকে।

আরো পড়ুনঃ  কাতারে হোটেল চাকরি | কাতার রেস্টুরেন্ট ভিসা

গ্রীস কৃষি ভিসা প্রশ্ন এবং উত্তর

গ্রিস কৃষি কাজের বেতন কত

গ্রিসে একজন কৃষি কর্মীর বেতন মূলত দেড় লক্ষ টাকা থেকে ২ লক্ষ টাকারও বেশি পরিমাণে হয়ে থাকে। এটি ডিপেন্ড করে কি ধরনের কৃষি কাজে সে নিয়োজিত আছে যদি কোম্পানির হয়ে কাজ করে তাহলে কিন্তু নির্দিষ্ট হারে বেতন প্রদান করা হয়ে থাকে। এছাড়া নিজে যদি কাজ করে তাহলে এর থেকে বেশি পরিমাণও বেতন তোলা সম্ভব।

গ্রিস কৃষি কাজে যাওয়ার উপায়

প্রথম অবস্থায় যেকোনো দেশের মাধ্যমে আপনারা গ্রিস কৃষি কাজের ভিসা নিয়ে যেতে পারবেন তবে এখন থেকে খুব সহজেই বাংলাদেশ ঢাকা গ্রীস ভিসা কেন্দ্রের মাধ্যমে কিন্তু ভিসা সংগ্রহ করা যাচ্ছে এক্ষেত্রে খরচও কম এবং খুব সহজেই আবেদন করে যাওয়া যাচ্ছে।

Comments

No comments yet. Why don’t you start the discussion?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *