দুবাই কোন কাজের বেতন বেশি | দুবাই কোন কাজের কত বেতন

দুবাই কোন কাজের বেতন বেশি
দুবাই কোন কাজের বেতন বেশি

আজকে আমরা কথা বলবো দুবাই কোন কাজের বেতন বেশি এবং দুবাইতে কোন কাজ গুলোতে করলে সুযোগ-সুবিধা এবং বিভিন্ন ধরনের বোনাস পাওয়া যায়। দুবাইতে এমন কিছু কাজ আছে যেগুলো অনেক সহজ এবং এই কাজগুলোতে বেতন বেশি পাওয়া যায়। তাই আজকে আমরা এই বিষয়টা নিয়ে বিস্তারিতভাবে তুলে ধরব তাহলে চলুন দেখে নেওয়া যাক দুবাই কোন কাজের বেতন বেশি।

যারা দুবাইতে  যাওয়ার আগে বিবেচনা করা উচিত যে আপনি কত টাকা বেতন সেখানে চাকরি করবেন এবং কতদিনে সেই টাকা তুলতে পারবেন। এই বিষয়গুলো জেনে তারপরে আপনাকে দুবাইতে কাজের উদ্দেশ্যে যাওয়া উচিত। তা না হলে আপনি যদি যেই খরচ হয়েছে সেই টাকা তুলতে বছর খানেক লেগে যায়। তাহলে কিন্তু আপনার সে টাকা তুলতে।

অনেক সময় লেগে যাবে তাই বিদেশে যাওয়ার ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনাকে চিন্তা ভাবনা করতে হবে আপনি কোন কাজের প্রতি যাবেন এবং কোন কাজে কত টাকা বেতন পাওয়া যাচ্ছে সেটা নিয়ে। তাহলে আপনি সেই খরচ হিসাব করে কতদিন লাগবে আপনার টাকা তুলতে এই বিষয়টি আপনি জেনে নিতে পারবেন।

দুবাই কোন কাজের বেতন বেশি

দুবাই কোন কাজের বেতন বেশি এই বিষয়ে কেউ যদি জানতে চায় তাহলে নিঃসন্দেহে বলা যায় ডাইভিং এবং রেস্টুরেন্টের কাজে বেতন অন্যান্য কাজের তুলনায় অনেকটাই বেশি হয়ে থাকে। ড্রাইভিং এর বেতন সাধারণত ৭০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা এবং রেস্টুরেন্টের কাজের বেতন ৬০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে এক লাখ টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।

তাছাড়াও আরো অন্যান্য কাজগুলোতে বেতন বেশি পর্যায়ক্রমে আমরা লিস্ট আকারে তুলে ধরেছি সেখান থেকে দেখে নিতে পারবেন কোন কাজে বেতন বেশি। এরমধ্যে থেকে আপনার পছন্দের কাজ অনুযায়ী দক্ষতা অর্জন করে দুবাইতে কাজের উদ্দেশ্যে রওনা দিতে পারবেন এবং ভালো পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

যে সমস্ত কাজগুলো বর্তমানে চাহিদা বেশী এই কাজগুলো কিন্তু বেতনের পরিমাণ বেশি পাওয়া সম্ভব। তবে সাধারণত ড্রাইভিং ভিসা তে কাজ করার জন্য অথবা রেস্টুরেন্টে কাজ করার জন্য আপনাকে পূর্ব অভিজ্ঞতা থাকতে হবে তারপরেই আপনি এই সমস্ত কাজগুলো করার অভিজ্ঞতা তৈরি করতে পারবেন অথবা কাজ পাওয়ার সুযোগ তৈরি করে নিতে পারবেন।

দুবাই কোন কাজের কত বেতন
কাজের ধরনকাজের বেতন
টাইলস মিস্ত্রি৪৫ হাজার
মেডিকেল ক্লিনার৪২ হাজার
পরিচ্ছন্নতাকর্মী৩৫ হাজার
হোটেল কর্মী৪৫ হাজার
ফুড প্যাকেজিং৫০ হাজার
ফ্যাক্টরি৪৪ হাজার
রেস্টুরেন্ট কর্মী৬০ হাজার
ড্রাইভিং এর কাজ৭০ হাজার
কনস্ট্রাকশন৪৫ হাজার
মেকানিক্যাল৬৫ হাজার
কৃষি কাজ৪০ হাজার
পাইপ ফিটিং৫৫ হাজার
রাস্তার কাজ৪০ হাজার
লেদের কাজ৪৪ হাজার
ইলেকট্রনিক্স৬৫ হাজার
গবাদি পশু পালন৩৫ হাজার
গার্মেন্টস কর্মী৪৫ হাজার
কেয়ারিং৪৫ হাজার
বাসা বাড়িতে কাজ৪০ হাজার

পর্যায়ক্রমে আমরা উপরের যে কাজগুলো লিস্ট প্রকাশ করেছে আনুমানিকভাবে প্রথম অবস্থায় বেতন দিয়ে শুরু হয় পরবর্তীতে বেতন বৃদ্ধি করা হয়। তারপরেও বিভিন্ন কোম্পানি রয়েছে তারা প্রতিবছর বিভিন্ন ধরনের যাতায়াত খরচ সহ বোনাস প্রদান করে থাকে।

তাই আপনি যেই কোম্পানির সঙ্গে চুক্তিতে কাজে যাচ্ছেন সেই কোম্পানির মাধ্যমে জেনে নিবেন যে আপনাকে কত টাকা বেতন দিচ্ছে এবং কি কি কাজে তাকে নিয়োজিত করবে এবং কত ঘন্টা ডিউটি এই বিষয়টি আপনার কোম্পানীর মাধ্যমে অবশ্যই জেনে নিতে হবে।

দুবাইয়ে ইলেকট্রিক কাজের বেতন কত

দুবাই ইলেকট্রিক কাজের বেতন ৬৫হাজার টাকা থেকে শুরু করে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে। প্রথম অবস্থায় কেউ যদি ইলেকট্রিক কাজে বিভিন্ন কোম্পানিতে নিয়োগ হয় তাহলে তার ৬৫ হাজার থেকে বেতন শুরু হয়। পরবর্তী অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে এবং কাজের উপর কাজের বেতন বৃদ্ধি করা হয়। তবে পরবর্তীতে পুরনো শ্রমিক হওয়ার কারণে এই কাজগুলোতে বেতন অন্যান্যদের তুলনায় বেশি পরিমাণ বাড়ানো হয়ে থাকে।

আরো পড়ুনঃ  সৌদি আরবের কোম্পানি ভিসা-কোন কোম্পানির বেতন বেশি

বর্তমানে ইলেকট্রিক কাজের চাহিদা দুবাইতে প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে নতুন নতুন কনস্ট্রাকশন কোম্পানি নিয়োগ প্রকাশ করা হয়ে থাকে। তাই কেউ যদি ইলেকট্রিক কাজ শিখে দুবাইতে যেতে পারে তাহলে ভালো পরিমাণ বেতন তোলা সম্ভব।

দুবাই কোম্পানি ভিসা বেতন কত

দুবাই কোম্পানি ভিসাতে বেতন ৪০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ৮০ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে। তবে এটি ডিপেন্ড করে আপনি কোন কাজের বা কোন কোম্পানিতে আছেন সেই বিষয়ের উপর। যদি ইন্টারন্যাশনাল মানের কোম্পানি হয়ে থাকে তাহলে বেতন ৫০ হাজারের ওপর থাকবে আর আপনি যদি নরমালি ছোট কোন কোম্পানির সাথে দুবাইয়ে কাজ করেন তাহলে এর বেতন ৫০ হাজারের নিচে হতে পারে অথবা ৫০ হাজারের বেশি হতে পারে।

আরো পড়ুনঃ  দুবাই ড্রাইভিং ভিসা | দুবাই ড্রাইভিং ভিসা বেতন কত

তবে অবশ্যই আপনি দুবাই কোম্পানিতে যদি আপনি কাজ করার সুযোগ পান তাহলে আগেই জেনে নিবেন যে কোন কাজ করবেন এবং কত টাকা বেতন দিবে এবং কত ঘন্টা ডিউটি করা লাগবে এই বিষয়টি ভালোমতো আগে থেকে জেনে নিতে হবে। এবং বেতনের পাশাপাশি আপনাকে কত টাকা বোনাস দিবে এবং আপনার যাতায়াত খরচ বহন করবে কিনা সেটা ভালোমতোই জেনে নিবেন।

দুবাই ড্রাইভিং বেতন কত

দুবাই ড্রাইভিং এর বেতন ৭০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে। তবে প্রথম অবস্থায় ৭০ হাজার থেকে বেতন শুরু হয়। তবে যদি আপনি কোম্পানিতে ড্রাইভিং ভিসা তে কাজ করার সুযোগ পান তাহলে বেতন কিন্তু অন্যান্য জায়গা থেকে বেশি পাওয়া যায়। বাসা বাড়িতে ড্রাইভিং এর কাজ করলে এর তুলনায় অনেকটাই কম হবে তবে কোম্পানিতে কাজ করলে বেশি পরিমাণ ড্রাইভিংয়ে বেতন পাওয়া যায়।

আরো পড়ুনঃ  গ্রীস কৃষি ভিসা ২০২৩ আবেদন ফ্রম

এবং পরবর্তীতে অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে ডাইভিং দের বেতন আরও বাড়ানো হয়ে থাকে। যদি আপনি ইন্টারন্যাশনাল কোম্পানিতে কাজ করেন তাহলে পরবর্তীতে আপনাকে অন্যান্য দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করে থাকে কোম্পানির মাধ্যমে। তাই যদি কেউ কোম্পানির মধ্যে ডাইভিং এর ভিসা নিয়ে ঢুকতে পারেন তাহলে তার জন্য সুযোগ সুবিধা বেশি থাকবে এবং ভালো পরিমাণ বেতন তোলা সম্ভব।

দুবাই সর্বনিম্ন বেতন কত

দুবাই একজন শ্রমিকের সর্বনিম্ন বেতন ৩৫ হাজার টাকা। তবে নতুন অবস্থায় এই বেতন দিয়ে শুরু হলেও পরবর্তীতে কিন্তু বেতন বৃদ্ধি করা হয়ে থাকে আপনি যখন এক বছর অথবা দুই বছর অতিক্রম করার পরেই পরবর্তীতে বেতন ৪০ টাকা থেকে শুরু করে আরো বৃদ্ধি করা হয়ে থাকে। আপনি যদি অভিজ্ঞতা তৈরি করে পরবর্তীতে অন্য কোম্পানিতে সুযোগ নিতে পারেন তাহলে কিন্তু আপনার বেতন আগের তুলনায় অনেকটাই বৃদ্ধি পাবে।

তাই প্রথম অবস্থায় নিম্নমানের বেতন দিয়ে অনেকেই বিভিন্ন কাজে প্রবেশ করে পরবর্তীতে সে অভিজ্ঞতা অর্জন করার পর অন্যান্য কোম্পানিতে সুযোগ তৈরি করে সেখানে চলে যাওয়ার চেষ্টা করে আবার অনেকেই কাজ চেঞ্জ করে অন্যান্য কাজে শিফট করে। তাই উচিত হবে প্রথম অবস্থায় এই বেতন দিয়ে বিভিন্ন ধরনের কাজগুলোতে সুযোগ তৈরি করে নেওয়া।

দুবাই শ্রমিকের বেতন কেমন

দুবাই একজন শ্রমিকের আনুমানিক গড় বেতন ৬৫ হাজার টাকা। তবে এটি ডিপেন্ড করে বিভিন্ন ধরনের কাজের উপর একটি শ্রমিকের বেতন কত ধরা হয়ে থাকে তা এই বিষয়টি এখানে তুলে ধরা হয়েছে। তবে এর মধ্যে বিভিন্ন ধরনের কাজের ক্যাটাগরি রয়েছে এই সমস্ত কাজের উপর ডিপেন্ড করে কিন্তু বেতন নির্ধারিত থাকে যেমন ডাইভিং এর বেতন অন্যান্য কাজের তুলনায় অনেক বেশি। এবং ক্লিনার পদে বেতন কিন্তু অন্যান্য কাজের তুলনায় অনেকটাই কম।

আরো পড়ুনঃ  কুয়েত ভিসা চেক-পাসপোর্ট নাম্বার দিয়ে ভিসা চেক

তাই সবদিক দিয়ে বিবেচনা করেই এই বিষয়টি এখানে তুলে ধরা হয়েছে তবে অবশ্যই দুবাইতে কাজে যাওয়ার আগে ভালো ভাবে অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হবে এবং পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ নিয়ে কাজের কোয়ালিটি ভালো মানের করতে হবে তাহলে আপনাকে ভালো পরিমাণ বেতন দিয়ে বিভিন্ন কোম্পানিতে সুযোগ তৈরি করে দিবেন।

সতর্কতাঃ

দুবাইয়ে যদি আপনারা দালালের মাধ্যমে গিয়ে থাকেন তাহলে কিন্তু বেতন যদি তাদের হাতে নিয়ে থাকে তাহলে আপনাকে সেখান থেকে অনেক টাকা রেখে দিয়ে কিন্তু বেতন দেওয়া হয়। তাই অবশ্যই আপনারা যদি দালালের মাধ্যমে যেয়ে থাকেন তাহলে এই বিষয়টি চিন্তাভাবনা করে দেখবেন।

আবার অনেকেই আছে যারা কিনা বেতন নিজের হাতে তোলার পরেও দালালদেরকে অগ্রিম ভাবে কিছু টাকা প্রদান করা লাগে বা প্রত্যেকবার বেতন থেকে দালালদেরকে কিছু দেওয়া লাগে এই বিষয়টি আপনারা যাচাই-বাছাই করে তারপর এই দালালদের হাতে টাকা দেয়ার চিন্তাভাবনা করবেন অথবা দেশ থেকে বিদেশে যাওয়ার আগেই তাদের সাথে ফাইনাল একটা ডিসিশন করে তারপরে বিদেশে যাওয়ার চিন্তাভাবনা করবেন।

3 Comments

  1. Mohan Miah

    Dubai Dekho na Bhalo company visa se

  2. মোঃ পান্নু, বাংলাদেশ, ড্রাইভিং
    কাজ জানা আছে,,বর্তমান কিছু দিন হলো বেকার আছি,

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *